গনেশ পূজা পদ্ধতি, মন্ত্র, পূজার উপকরণ ও নিয়ম PDF

WhatsApp Channel Follow Now
Telegram Group Follow Now

গনেশ পূজা পদ্ধতি, মন্ত্র, পূজার উপকরণ ও নিয়ম PDF ডাউনলোড : গণেশ তাঁর বিভিন্ন চারিত্রিক বৈশিষ্ট্যের জন্য প্রসিদ্ধ। কিন্তু তাঁর হাতির মাথাটিই তাঁকে সর্বাধিক পরিচিতি দান করেছে। গণেশকে বিঘ্ননাশকারী, শিল্প ও বিজ্ঞানের পৃষ্ঠপোষক এবং বুদ্ধি ও জ্ঞানের দেবতা রূপে পূজা করা হয়। বিভিন্ন শুভকার্য, উৎসব ও অনুষ্ঠানের শুরুতেও তাঁর পূজা প্রচলিত আছে। অক্ষর ও জ্ঞানের দেবতা রূপে লেখার শুরুতেও গণেশকে আবাহন করা হয়।

ব্রহ্মাণ্ড পুরাণ মতে, তাঁর উদরে সমগ্র জগৎসংসারের অবস্থান বলেই তিনি লম্বোদর। গণেশের হস্তসংখ্যা ও অস্ত্র নিয়ে নানা মতদ্বৈধ দেখা যায়। সচরাচর গণেশের চতুর্ভূজ মূর্তি অধিক পূজিত হলেও স্থানবিশেষে দ্বিভূজ থেকে ষড়ভূজ গণেশও দেখা যায়। গণেশের হাতে সাধারণভাবে পাশ-অঙ্কুশ, বরাভয় ও মোদকই দেখা যায়। তবে বাঙালি বিশ্বাসে গণেশ বিষ্ণুর মতো শঙ্খচক্রগদাপদ্মধারী।

হিন্দু শাস্ত্র অনুসারে, সুখ-সমৃদ্ধির দেবতা শ্রী গণেশের জন্ম ভাদ্র মাসের শুক্লপক্ষের চতুর্থী তিথিতে। তাই প্রতি বছর এই সময় মহা ধুমধাম করে পালিত হয় গণেশ উৎসব। দশ দিন ধরে চলা গণেশোৎসব শুরু হয় ভাদ্র মাসের শুক্লপক্ষের চতুর্থী তিথিতে এবং শেষ হয় অনন্ত চতুর্দশীতে।

গনেশ পূজা পদ্ধতি

গনেশ পূজা পদ্ধতি

আজ শুভ গণেশ চতুর্থী, সকাল থেকে অনেকের বাড়িতেই পুজোপাঠের বিশেষ আয়োজন করা হয়েছে। আজকের দিনে ১০৮ দূর্বা, লাল জবার মালা, পান পাতা, সিঁদুর আর রক্ত চন্দনে শ্রী গণেশের পূজা করার রীতি রয়েছে। বিশ্বাস করা হয় দূর্বা দিয়েই ভগবান গণেশের অভিষেক হয়। এরপর ভক্তি সহকারে তাঁর পুজো করলে কেটে যায় দুর্ভোগ ও বাঁধা বিপত্তি। তবে প্রসাদে অবশ্যই গণেশের প্রিয় মোতিচুরের লাড্ডু দেবেন।

গণেশ চতুর্থীর তিথি ও শুভক্ষণ

এ বছর ভাদ্র মাসের শুক্লপক্ষের চতুর্থী তিথি শুরু হচ্ছে ১৮ সেপ্টেম্বর দুপুর ১২টা ৩৯ মিনিটে। চতুর্থী শেষ হবে ১৯ সেপ্টেম্বর দুপুর ১টা ৪৩ মিনিটে। উদয়া তিথি অনুযায়ী ১৯ সেপ্টেম্বর গণেশ চতুর্থী উদযাপিত হবে। এই দিন থেকেই দশদিনব্যাপী গণেশোৎসব শুরু হবে। বাড়িতে গণেশ স্থাপন করুন ১৯ সেপ্টেম্বর সকাল ১১.০৭ থেকে ১.৩৪ এর মধ্যে।

গনেশ পূজার উপকরণ

এই পুজোর প্রস্তুতির জন্য প্রয়োজনীয় সামগ্রীর মধ্যে রয়েছে -ধূপ, আরতির থালা, সুপুরি, পান পাতা, গণেশের জন্য নতুন পোশাক, চন্দন কাঠ।

গনেশ পূজার নিয়ম

বাড়িতে গণেশ মূর্তি স্থাপনের আগে সারা বাড়ি পরিষ্কার রাখুন। পবিত্র ভাবে স্নান সেরে মন্ত্রের মাধ্যমে মূর্তিতে প্রাণ প্রতিষ্ঠার পর শুরু হবে পুজো। ঋক বেদ বা গণেশ সুক্তায় পাবেন প্রাণ প্রতিষ্ঠার মন্ত্র। এরপরই ধূপ ও প্রদীপ জ্বালিয়ে শুরু করুন আরতি।

এরপর ষোড়শপচারে অর্থাৎ গণেশ বন্ধনার ১৬ টি রীতি মেনে গণেশ দেবতার আরাধনা শুরু করুন। এরপর ২১টি দূর্বা ঘাস, ২১টি মোদক ও লাল ফুল গণেশের ঠাকুরেরে সামনে সাজিয়ে রাখুন। মূর্তির মাথায় আঁকুন লাল চন্দনের টিকা। এরপর গণেশ মূর্তির সামনে নারকেল ভেঙে অশুভ শক্তিকে দূর করুন। তারপর গণেশের ১০৮ নাম জপ করুন। মূর্তির সামনে করজোড়ে বিনম্র প্রার্থনা করুন পরিবারের সুখ, শান্তি ও সমৃদ্ধির।

গনেশ প্রণাম মন্ত্র

একদন্তং মহাকায়ং লম্বোদরং গজাননম্।
বিঘ্ননাশককরং দেবং হেরম্বং প্রণমাম্যহম্।।

বাংলা অনুবাদ – যিনি একদন্ত, মহাকায়, লম্বোদর, গজানন এবং বিঘ্ননাশকারী সেই হেরম্বদেবকে আমি প্রণাম করি।

সরলার্থ – যিনি এক-দাঁত-বিশিষ্ট, যার শরীর বিশাল, লম্বা উদর, যিনি গজানন এবং বিঘ্ননাশকারী, সেই হেরম্বদেব গণেশকে প্রণাম জানাই।

গনেশ পূজা পদ্ধতি PDF

গনেশ পূজা পদ্ধতি, মন্ত্র, পূজার উপকরণ ও নিয়ম PDF ডাউনলোড করার জন্যে নিচের দিকে ডাউনলোড বক্সে ক্লিক করুন।

গণেশ গায়ত্রী মন্ত্র

ওঁ তৎপুরুষায় বিস্মহে বক্রতুণ্ডায়
ধীমহি তন্নো দন্তী প্রচোদয়াৎ।।

গণেশ ধ্যান মন্ত্র

ওঁ খর্বং স্থূলতনুং গজেন্দ্রবদনং লম্বোদরং সুন্দরং প্রস্যন্দম্মদগন্ধলুব্ধ মধুপব্যালোলগণ্ডস্থলম্।

দন্তাঘাত বিদারিতারিরুধিরৈঃ সিন্দুরশোভাকরং, বন্দেশৈল সুতাসুতং গণপতিং সিদ্ধিপ্রদং কামদম্।।

গণেশের প্রার্থনা মন্ত্র

দেবেন্দ্রমৌলিমন্দারমকরন্দকণারুণাঃ।
বিঘ্নং হরন্তু হেরম্বচরণাম্বুজরেণবঃ।।

অর্থাৎ, দেবরাজ ইন্দ্রের মস্তকে বিরাজিত মন্দারপুষ্পের পরাগসমূহের দ্বারা রক্তিম হেরম্বের পাদপদ্মের রেণুসমূহ আমার বিঘ্নহরণ করুক।

গণেশের পুষ্পাঞ্জলী মন্ত্র

বিঘ্নেশ্বরায় বরদায় সুরপ্রিয়া
লম্বোদরায় সকলে জগৎদ্বয়
নাগননাথ শ্রুতযজ্ঞ বিভূষিতয়
গৌরীসুর গণনাথ নমৌ নমস্তুতে

একদন্তায় শুদ্ধায় সুমুখায় নমো নমঃ
প্ৰপন্নজন পালায় প্রনতার্তি বিনাশিনে

গণেশ বন্দনা বাংলা

প্রণামো চরণে প্রভু দেব গজানন।
তোমার স্মরণে হয় বিঘ্নবিনাশন।।
একদন্ত গজানন চতুর্ভূজ ধারী।
খর্বকায় স্থুলতণু লম্বোদরধারী।।
দিব্য দেহে শোভা পায় নানা আভরণ।
দিব্যমালা কণ্ঠে তুমি করিছা ধারণ।।
রক্তবর্ণ দেহ তোমার মুষিক বাহণ।
সর্ব দেব-দেবী আগে তোমার পুজন।।
বিরাজিত তুমি দেব রত্ন সিংহাসনে।
বারে বারে প্রণাম করি দুখানি চরণে।।

বন্দ দেব গজানন বিঘ্ন বিনাশন।
নমঃ প্রভু মহাকায় মহেশ নন্দন।।
সর্ববিঘ্ন নাশ হয় তোমার শরণে।
অগ্রেতে তোমার পূজা করিনু যতনে।।
নমো নমো লম্বোদর নমঃ গণপতি।

মাতা যার আদ্যাশক্তি দেবী ভগবতী।।
সর্বদেব গণনায় অগ্রে যার স্থান।
বিধি-বিষ্ণু মহেশ্বর আর দেবগণ।।
ত্রিনয়নী তারার বন্দিনু শ্রীচরণ।
বেদমাতা সরস্বতীর লইনু শরণ।।
মন্ত্রঃ – ওঁ গাং গণেশায় নমঃ।

ওঁ শ্রী গণেশায় নমঃ’ বা ‘ওঁ গাং গণেশায় নমঃ ওঁ শ্রী গণেশায় নমঃ’ বা ‘ওঁ গাং গণেশায় নমঃ

গনেশ পূজা পদ্ধতি, মন্ত্র, পূজার উপকরণ ও নিয়ম PDF : আশাকরি করি গনেশ পূজার পদ্ধতি ও মন্ত্র গুলি আপনার পূজার কাজে যথেষ্ট সহায়তা করবে যদি পোষ্টটি ভালো লেগে থাকে তাহলে মন্তব্য করে জানাবেন আর অবশ্যই শেয়ার করতে ভুলবেন না আরও নতুন নতুন তথ্য পাওয়ার জন্যে আমাদের ওয়েবসাইট টি সাবস্ক্রাইব করতে পারেন নমস্কার।
WhatsApp Group Join Now
Telegram Group Join Now

Leave a Comment